অনু আড্ডাঃ ৩

শুভ সন্ধ্যা বন্ধুগন। দেখতে দেখতে আমরা অনু আড্ডার দুটি পর্ব পড়ে শেষ করে ফেললাম। আমার খুব ভালো লাগছে এতদিন পরেও অনু আড্ডা সম্পর্কে তোমাদের আগ্রহ দেখে। তোমরা অনেকেই ইনবক্সে অনু আড্ডা সম্পর্কে ফিডব্যাক দিচ্ছো। কিন্তু এই ব্যাপারে আমি তোমাদেরকে নিরুৎসাহিত করতে চাই। তোমরা যদি ইনডিভিজ্যুয়াল পোস্টে মন্তব্যটি দাও তাহলে অংশগ্রহনকারী বন্ধুটির ভালো লাগবে। সেও জানতে পারবে তোমার ধারণাগুলি। অনু আড্ডা হচ্ছে একটি প্লাটফর্ম যেখানে যে কেউই তার মনের কথামালা আমাদের সাথে শেয়ার করতে পারে। তুমি চাইলে তুমিও আসতে পারো আমাদের আড্ডায়। অনেককে বলতে শুনি অনু আড্ডা হচ্ছে সেক্স চ্যাট। তারা ঠিক কোন দৃষ্টিকোন থেকে বলে আমার জানা নাই। একজন সমকামীর সাক্ষাৎকারে সেক্স সম্পর্কিত বিষয় আসাটাই স্বাভাবিক। কারন যৌনপছন্দই একজন বিষমকামী থেকে একজন রঙধনুকামীকে আলাদা করেছে। আর কথা নয়। আজকের পর্ব শুরু করা যাক। আজ আমাদের অতিথির চেয়ারে আছে অনি চৌধুরী। অনিকে অনু আড্ডায় আনতে পেরে আমি আনন্দিত বোধ করছি। যখন অনু আড্ডা বন্ধ ছিলো তখন অনি একদিন আমাকে বলেছিলো তার জন্য একটা অনু আড্ডা লিখি। অবশেষে অনু আড্ডা প্রেজেন্ট অনি। হাই অনি কেমন আছো

অনিঃ ভালো আছি। তুমি?
শুভ্রঃ আমিও ভালো আছি। শুরুতেই আমাদের বন্ধুদেরকে তোমার পরিচয় জানিয়ে দাও।
অনিঃ অনি। ঢাকাতেই জন্ম বেড়ে ওঠা সবকিছু। ইঞ্জিনিয়ারিং শেষ করেছি ৬ বছর হল। দুটো বহুজাতিক কোম্পানিতে চাকরি করেছি, এখন যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক একটি কম্পানিতে আছি অডিটর হিসেবে। পাশাপাশি এমবিএ করছি। ঘুরে বেরাতে পছন্দ করি। আর পছন্দ করি রবীন্দ্রনাথ এর সৃষ্টিতে নিমগ্ন থাকতে। জীবনের একটা বড় সময় গান নিয়ে কাটিয়েছি, এখন শুধু নিজের জন্যে গাই।
#
শুভ্রঃ ওয়াও। যারা গান গাইতে পারে তাদেরকে আমার খুব লাকি মনে হয়। এই একটি ব্যাপারে না পারার ব্যর্থতা আমাকে কষ্ট দেয়। আমি নিজেও একজন রবীন্দ্র ভক্ত। তোমার কর্মজীবন দেখছি বেশ বর্নীল। এরই মধ্যে অনেক অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করে ফেলেছো। তুমি রঙধনু জগতের সাথে কিভাবে পরিচিত হলে? কবে এবং কিভাবে জানলে তুমি সমকামী?
অনিঃ বরাবরই ছেলেদের প্রতি আকর্ষণ ছিল। কখন কিভাবে সেভাবে বলতে পারব না। ১০ বছর বয়সে, দূরসম্পর্কের এক আত্মীয় আমাদের বাসায় থেকে পড়াশোনা করত, তার সাথেই প্রথম শারীরিক সখ্যতা হয়। তখন থেকে এই ব্যাপারটার প্রতি আকর্ষণ তৈরি হয়। তখন তো আর আজকের মত এতো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ছিল না। মাধ্যমিক এর সময় যখন কম্পিউটার শিখলাম তখন ইন্টারনেট এ প্রথম সমকামী পর্ণ দেখলাম। ২০০৪-৫ এর দিকে ইয়াহু ম্যাসেঞ্জার আর মিগ৩৩ এর মাধ্যমে কয়েকজন সমমনা বন্ধু পাই। এভাবেই আমার রংধনু জগতের সাথে পরিচয়।
#
শুভ্রঃ অধিকাংশ সমকামী জীবনের শুরু গল্প প্রায় একই রকম। এই উনিশ বিশ আর কি। আমিও একসময় প্রচন্ড মিগ৩৩ ইউজ করতাম। এখনও মিগ৩৩ আছে দেখলাম। এন্ড্রয়েড এপ্সও বানিয়েছে। কিন্তু আগের মত আবেদন ধরে রাখতে পারেনি। উনিশ বিশ বলতে গিয়ে বয়সের কথা মনে পড়ে গেলো। বয়স তো বেশ হয়েছে। বৈবাহিক সুত্রানুসারে তো এখনও কুমার রয়ে গেছো বিয়ের কথা কি ভাবছো?

অনিঃ কখনই না। একজন মেয়েকে কখনই জীবনসঙ্গী হিসেবে ভাবতে পারি না আমি। একজন সমকামী হিসেবে আমি জানি আমি কখনই একটা মেয়েকে সম্পূর্ণভাবে সন্তুষ্ট করতে পারব না। সেটা যে শারীরিক তা নয়, মানসিকভাবে একটা মেয়ে তার স্বামীর কাছ থেকে সাপোর্ট আশা করে, একজন সমকামী পুরুষের পক্ষে সেটা পুরপুরিভাবে পূরণ করা সম্ভব নয়। আর তখনি শুরু হয় পারিবারিক অশান্তি। তখন মনের অজান্তেই সমকামী পুরুষ আরেক সমকামী পুরুষের প্রতি আকৃষ্ট হয়। আমার পরিচিত সমকামী পুরুষের মধ্যেই এরকম ঘটনা অনেক আছে। আর তাছাড়া একটা মেয়ের শরীর আমাকে কোনভাবেই আকর্ষণ করে না। আমার মনে হয় এতে করে মেয়েটাকে ঠকানো হয়। এটা আমার স্বভাববিরুদ্ধ।
আমি মনে করি আমার নিজের নিয়ত যদি ঠিক থাকে তাহলে সবই সম্ভব। আমার কোন অধিকার নেই একটা মেয়ের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলার।

#
শুভ্রঃ আচ্ছা না করলে নেই। ছিনিমিনি খেলার দরকার নেই। আজকাল অনলাইনে অনেক বেড গেম আবিষ্কৃত হয়েছে। আমি তোমার গার্জিয়ান না। চাপাচাপিও করবো না। জাস্ট চিল। স্বাধীন বাংলাদেশে সংবিধান অনুসারে চিন্তার স্বাধীনতা রয়েছে। বিয়ে রিলেটেড একটা সম্পুরক প্রশ্ন করি। বিয়ে না করে এই সমাজে বাসকরা কি তোমার পক্ষে সম্ভব হবে?
অনিঃ আমি যেটা পারব না, সমাজের কথা চিন্তা করে কেন সেটা করতে যাব?

#
শুভ্রঃ প্রেম করেছো?
অনিঃ অনেকবার।
#
শুভ্রঃছ্যাঁকা খেয়েছ?
অনিঃ প্রতিবার।
#
শুভ্রঃ সম্পর্কগুলো ভেঙে যাওয়ার পেছনে কি কারণ ছিলো বলে মনে রছি?
অনিঃ সততা আর স্বচ্ছতার অভাব।
#
শুভ্রঃ ব্যাটা মানুষ চিনে প্রেম করতে পারো না! সমকামিতা নিয়ে কখনো বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়েছ? এও যেমন একটা ছেলের সাথে প্রেম করতে গিয়ে কখনো বাবা মায়ের কাছে ধরা খাওয়া?
অনিঃ বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পরিনি কিন্তু কষ্টদায়ক ঘটনা আছে অনেক। আমার বাবার হার্ট অ্যাটাকে মারা যাওয়ার জন্যে আমার সমকামী প্রেমের সম্পর্ক অনেকাংশে দায়ী বলে মনে করেন আমার মা। এটা আমাকে আজীবন কষ্ট দেবে।
#
শুভ্রঃ আচ্ছা। আসলে সমকামী জীবনে কষ্ট মুদ্রার অপরপিঠ। কখনো সংগ ছাড়ে না। তোমার পরিবার দেখা যাচ্ছে তোমার সমকামিতার ব্যাপারে জানে। তোমার সম্পর্কে তোমার পারিপার্শ্বিক মানুষের অভিব্যক্তি কেমন বলে মনে হয়?
অনিঃ আমার বিদেশী সহকর্মীরা আমার সমকামিতার ব্যাপারে জানে। কিন্তু আমাদের এই সমাজ এখনও অতটা উদার হয়নি যে তারা আমার এই ব্যাপারটাকে ভাল চোখে দেখবে। তবে আমার খুব কাছের দুই বান্ধবী আমার এই ব্যাপারটা জানে কিন্তু এটা নিয়ে কথা বলে আমাকে কখনও বিব্রত করে না তারা। আমার মা ওদেরকে আমার বিয়ের কথা বললে ওরা আমাকে বেশ সাপোর্ট করে, বলে, ও না চাইলে ওকে জোর করবেন না। আমার মা আমার সমকামিতার ব্যাপারে জানে, কিন্তু তিনিও আর দশজন বাংলাদেশী মায়ের মত মনে করেন বিয়ে করলে সব ঠিক হয়ে যাবে।
#
শুভ্রঃ মায়েরা অবশ্যই সন্তানের মংগল চায়। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে তারা সন্তানকে বুঝতে চায় না। ভয় পায়। আমার বাচ্চাটি কিভাবে একলা বাঁচবে এই পৃথিবীর বুকে। তাই সে স্বাভাবিক জীবন দেওয়ার চেষ্টা করে। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় সন্তানের জীবন তাতে আরো বেশী জটিল হয়ে যাচ্ছে। সমকামী হিসেবে নিজেকে কিভাবে মূল্যায়ন করবে? যদিও একটু বেশী ব্যক্তিগত হয়ে যায়, দৈহিক কামনা, প্রেম-রোমান্স কোনটা বেশী তুমি ফিল করো?
অনিঃ নিজের মূল্যায়ন আমি কখনই করতে যাব না। এটা বরং তোমরা আমার যারা কাছের মানুষ আছ তারাই কোরো। আর যে যত বড় কথাই বলুক না কেন শারীরিক চাহিদা কেও উপেক্ষা করতে পারবে না। আমিও পারি না। তবে আমি ব্যক্তিগতভাবে একটু রোমান্টিক। একজন মাসল্ড বডি সুদর্শন এর চাইতে একজন সুন্দর বাচনভঙ্গির পরিচ্ছন্ন মানুষ আমাকে অনেক বেশি আকর্ষণ করে। থাইল্যান্ড এর গে ট্রিপ এর চাইতে কক্সবাজার এ পূর্ণিমার রাতে সাগরের পাড়ে বসে শঙ্খ ঘোষ এর কবিতার আবৃত্তি শুনতে বেশী পছন্দ করি।
#
শুভ্রঃ থাইল্যান্ডে গে ট্রিপ! সে আবার কি জিনিস! আহ কক্সবাজারের কথা মনে করিয়ে দিলে। ইশ, আমার যদি একটা চাকরি জুটতো সমুদ্র শহরে। সমকামী হিসেবে তুমি কি সুখী?
অনিঃ আপাতদৃষ্টিতে আমি সুখী। তবে এই জগতের কিছু কিছু মানুষের অসততা, শঠতা আমাকে খুব কষ্ট দেয়। তখন খুব হতাশ হয়ে যাই।

শুভ্রঃ বাংলাদেশে কি সমধিকার সম্ভব?
অনিঃ বাংলাদেশ এর মানুষের মানসিকতা এখনও সেই পর্যায়ে পৌছায়নি যে তারা সমধিকার মেনে নেবে। আমি মাঝে মাঝে অবাক হই এটা ভেবে যে আমাদের পাশেই পশ্চিমবঙ্গ তারাও জাতিতে বাঙ্গালী, তারা এখন অনেক ক্ষেত্রেই মেনে নিচ্ছে। আমার একজন বন্ধু আছে যার পরিবার তার ছেলেবন্ধুকে মেনে নিয়েছে। এই ঘটনাগুলো মাঝে মাঝে মনে আশা জাগায়। ওরা পারলে আমরা কেন পারব না?

শুভ্রঃ ভারত একবার মেনে নেয় তো আরেকবার হাইকোর্ট দেখায়। ওদের বোঝা মুস্কিল হয়ে দাঁড়িয়েছে। সমকামী বন্ধুদের উদ্দেশ্যে কি কিছু বলতে চাও?
অনিঃ সমকামী বন্ধুদের উদ্দেশ্যে একটাই কথা বলব, শুধু প্রেমের সম্পর্কে না, বন্ধুত্বের ক্ষেত্রেও সততা আর স্বচ্ছতা রেখ। তাহলে জীবনে আর কেও পাশে থাকুক না থাকুক বন্ধুরা পাশে থাকে। এটা আমি আমার নিজের জীবন দিয়ে বুঝেছি। আমার সবচেয়ে কষ্টের মুহূর্তগুলোতে আর কাওকে পাশে না পেলেও আমার প্রিয় বন্ধুগুলোকে পাই। ওদের সাথে আমার বন্ধুত্ব অনেক বছরের। একে অপরের প্রতি বিশ্বাসই এই বন্ধুত্ব টিকিয়ে রেখেছে।
#
শুভ্রঃ সমকামী বন্ধুত্ব সম্পর্কে তোমার ধারণা কি? সমকামীরা কি নরমাল বন্ধুদের মত আন্তরিক?
অনিঃ এই প্রশ্নের উত্তর অনেকটাই আগের প্রশ্নের উত্তরে দিয়ে দিয়েছি। আমার কাছে বন্ধুত্ব বন্ধুত্বই……সেটা সমকামী হোক আর বিসমকামী হোক। তবে একজন সমকামী হিসেবে আরেকজন সমকামী বন্ধুর কাছে অনেক বেশী ইমোশনাল সাপোর্ট আশা করি আমরা। আর আন্তরিকতা নির্ভর করে মানসিকতার উপর।

শুভ্রঃ শুভ্র তোমাকে চ্যাটে কখনো তুই আবার কখনো তুমি করে বলে? কোনটাতে তুমি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করো?
অনিঃ আমি বেশ enjoy করি। তুই ব্যাপার টা মাঝে মাঝে বন্ধুত্ব সম্পর্কটাকে খুব আপন করে তোলে যেটা ওই মুহূর্তে হয়ত দুইজনেরই দরকার হয়। বন্ধুত্বর এই দিকটা আমি আসলেই খুব প্রয়োজন অনুভব করি। মজার ব্যাপার হচ্ছে আমরা দুজনই একই বয়সী তারপর ও তুই বলব না তুমি বলব সেটা অমীমাংসিত। এরকম একটু আধটু twist না থাকলে বন্ধুত্ব টা ঠিক জমে না। ঠিক বলেছি না বল??? হা হা হা
#
শুভ্রঃ যা খুশী বলো। আমি শুধু আমার থেকে বয়সে এক হাত খাটো ছেলেদের তুই করে বলা মেনে নিতে পারিনা তুমি তো শুভ্রকে অনু পম থেকেই চেনো। তার সম্পর্কে তোমার ধারণা কি?
অনিঃ হা হা হা……আমার কাছে শুভ্র হল বিষু পাগল। যারা রক্তকরবী পড়েছে তারা বুঝতে পারবে। আশা করি তুমিও পারবে। কিছুটা খ্যপাটে……কিছুটা পাগল। সবচেয়ে বড় কথা মানুষ ভালো।

শুভ্রঃ রক্তকরবীর বিষু পাগলা কেমন ক্যারেক্টার ছিলো মনে পড়ছে না। যাই হোক পাঠকের সামনে আর সেটা জিজ্ঞেস করার সাহস পাচ্ছি না। অনু আড্ডায় অংশ নেওয়ার জন্য ধন্যবাদ অনি। আমি এখন রক্তকরবী পড়তে চললাম। বন্ধুরা তোমাদের কাছ থেকে আজ এখানেই বিদায় নিচ্ছি। চতুর্থ পর্বে হাজির হবো নতুন এক বন্ধুর সাথে। ভালো থেকো।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.