প্রজেক্ট ধী (২০১৫-২০১৬)

প্রজেক্ট ধী ‘বয়েজ অব বাংলাদেশ’-এর চৌদ্দ মাসের একটি প্রকল্প- 

১. যেখানে দেশব্যাপী আগামীতে অনুষ্ঠিত পনেরোটি অনুষ্ঠানে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে বাংলাদেশী সমকামী জনগোষ্ঠী নিয়ে বিরাজমান অপরিষ্কার ধারণা স্পষ্ট করার চেষ্টা করা হবে।
২. সাতটি বিভাগীয় শহরের সবগুলোতে তৈরি হবে এলজিবিটি কমিউনিটি নেটওয়ার্ক।
৩. আগামী পাঁচ বছরে বাংলাদেশী সমকামী সম্প্রদায় কি করতে চায় না চায়- সেই কর্মপরিকল্পনার খসড়া

এই প্রজেক্টের উদ্দেশ্য মূলত বাংলাদেশে ‘সমকামিতা’ নিয়ে যেসব বিভ্রান্তি এবং অস্পষ্টতা রয়েছে, সেগুলো নিয়ে নাড়াচাড়া করার সাথে সাথে দেশব্যাপী এই জনগোষ্ঠীকে আরো সুসংহত এবং সুপরিকল্পিত করাই প্রজেক্ট ধী-এর অন্যতম উদ্দেশ্য। বাংলাদেশের সমকামি সম্প্রদায়ের ভেতর ও বাইরের সকলের জন্যই এই প্রজেক্ট। প্রজেক্ট ধী-এর ত্রি-স্তম্ভের মাধ্যমে আগামী মাসগুলোতে সম্পন্ন হবে এই প্রকল্প।

১। External Advocacy Outreach: আওয়াজ

আওয়াজ প্রজেক্ট ধী- এর তিন উপাদানের মধ্যে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ এবং ব্যাপকতার দিক দিয়ে সবচেয়ে বড় উপাদান। এপ্রিলের মাঝামাঝি থেকে, অর্থাৎ বাংলা নতুন বছরের একদম শুরুতে আওয়াজ এর যাত্রা শুরু করবে এবং পরবর্তী সাত মাসে আওয়াজ পৌঁছে যাবে বাংলাদেশের সব কয়টি বিভাগে।
‘আওয়াজ’ কি? 
আওয়াজ সমকামিতা নিয়ে বিরাজমান নীরবতার অবসান। পুরো দেশব্যাপী ১৫ টি ‘ক্যাম্পেইন বেজড ইভেন্ট’ বা প্রচারণামূলক কর্মশালার মাধ্যমে আওয়াজের কার্যক্রম সম্পাদিত হবে। দেশের সাতটি বিভাগে বাংলা নববর্ষের শুরু থেকে চালু হবে এই কার্যক্রম। প্রত্যেকটি বিভাগে নূন্যতম দুইটি (একটি মূল আয়োজন এবং পরবর্তীটি ফলো-আপ) করে অনুষ্ঠান থাকবে। প্রতিটি ‘আওয়াজে’ আমরা সর্বনিম্ন পঞ্চাশজন করে অংশগ্রহণকারী আশা করা হচ্ছে যাদেরকে ‘ধী-শক্তি’/Priority Change Maker বলা হচ্ছে। এই পঞ্চাশজন ‘ধী-শক্তি’-ই এলজিবিটি কমিউনিটির বাইরের হবেন এবং কমিউনিটির সহায়ক শক্তি হিসেবে কাজ করবেন।
কাদের জন্য?
মূলত এমন মানুষদের জন্য আওয়াজ যারা নিজেদেরকে সমকামী বলে দাবী করেন না, অর্থাৎ এলজিবিটি কমিউনিটি’র বাইরের লোকজন। ১৫টি অনুষ্ঠানে মোট ৭৫০ জন ‘ধী-শক্তি’ অংশগ্রহণ করবেন। এই ৭৫০ জন ধী-শক্তিদের মধ্যে এনজিও কর্মী, সাংবাদিক, শিক্ষক, মানবাধিকার কর্মী, ডাক্তার, ছাত্র-ছাত্রী সহ সমাজের বিভিন্ন স্তরের লোক অংশগ্রহণ করবেন।
১৫ টি অনুষ্ঠানের প্রত্যেকটি এমনভাবে সাজানো হচ্ছে, যাতে করে এলজিবিটি কমিউনিটি-এর বাইরের লোকজন এখানে এসে সমকামিতা-সহ প্রাসঙ্গিক নানা বিষয়ে আলাপ করতে পারে। ১৫ টি অনুষ্ঠানের প্রত্যেকটিতে প্রত্যেক ‘ধী-শক্তি’-কে কিছু তথ্য সম্পৃক্ত কাগজ দেয়া হবে যাকে বলা হচ্ছে ‘ধী-উপাদান’। 
প্রত্যেক ধী শক্তি ন্যূনত্ম দশজন সহায়কের সাথে এই ‘ধী-উপাদান’ শেয়ার করবেন, অর্থাৎ ৭৫০ x ১০= ৭,৫০০ জন লোকের কাছে বছর শেষে ধী এর বার্তা পৌঁছে যাবো। 
কেন?
কাউকে সমাকামী বানানো কিংবা সমকামিতায় উদ্বুদ্ধ করতে চায় না আওয়াজ। বরং সমকামিতা নিয়ে যতো কুসংস্কার, গড়মিল আর ঢাকঢাক গুড়গুড় আছে, সেসব দূর করতেই আওয়াজের অবস্থান।

২। Internal Community Mobilization: ধীমান

প্রজেক্ট ধী এর ত্রি-স্তম্ভের একটি ‘ধীমান’। পুরো দেশ থেকে বাছাই করা ২১ জন কমিউনিটি লিডার-এর শক্তিশালী এক নেটওয়ার্কের নাম ‘ধীমান’। ধী-চক্রের এই একুশ ধার নিয়ে পুরো দেশজুড়ে তৈরি করা হবে কমিউনিটি নেটওয়ার্ক। এতোদিন ধরে যে নড়াচড়াগুলো বিচ্ছিন্নভাবে দানা বাঁধছিলো এখানে সেখানে, ‘ধীমান’ তাকে আরো একত্রিত এবং সুসংহত করবে।
কি?
পুরো দেশজুড়ে প্রত্যেক বিভাগ থেকে উপযুক্ত একুশজন ধীমান খুঁজে বের করা হবে। এই একুশজন ধীমানের জন্য মার্চে আয়োজন হবে দুই দিনব্যাপী রেসিডেন্সিয়াল/আবাসিক প্রশিক্ষণ কর্মশালা। ‘নিত্য যেথা, তুমি সর্ব কর্ম চিন্তা আনন্দের নেতা’- রবীন্দ্রনাথের এই মূলমন্ত্রে উজ্জীবিত হয়ে ‘ধীমান’রা এই দুই দিনে অংশ নিবে অভিজ্ঞতা এবং বন্ধুত্ব বিনিময়ে। সাত বিভাগ থেকে আসা একুশজন এরপর তাদের নিজেদের বিভাগে ফিরে গিয়ে তাদের নিজ নিজ বিভাগের বাস্তবতা অনুযায়ী সেখানকার স্থানীয় এলজিবিটি কমিউনিটির সাথে যোগাযোগ করবে।
অবশেষে সাত বিভাগের প্রত্যেকটিতে ধীমানরা আয়োজন করবে ‘কমিউনিটি ইভেন্ট’। আশা করা যাচ্ছে জুলাই থেকে সাত বিভাগের এই অনুষ্ঠান/’কমিউনিটি ইভেন্ট’ শুরু করা সম্ভব হবে।

৩। Strategy Action Plan: নকশা

নকশা আগামী পাঁচ বছরে বাংলাদেশী সমকামী সম্প্রদায় তাদেরকে কোথায় দেখতে চায়, তার খসড়া। কমিউনিটির ভিতরের এবং বাইরের বিভিন্ন অভিজ্ঞ মানুষের অংশগ্রহণে বাস্তবায়িত হবে ‘নকশা’-এর প্রণয়ন। প্রজেক্ট ধী-এর শেষ নাগাদ সমকামী সম্প্রদায়ের আগামী পাঁচ বছরের কর্মপরিকল্পনার একটা খসড়া থাকবে আশা করা হচ্ছে।

প্রজেক্ট ধী-এর এই ত্রি-স্তম্ভের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার হচ্ছে, প্রজেক্টের এই তিনটি উপাদানের কাজই একসাথে চলতে থাকবে এবং একটা আরেকটার সাথে সম্পর্কযুক্ত হবে।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.