অ-পুরুষের আত্মকথন

কবিঃ জনি ড্যানিয়েল

সমাজ আমাকে ঠিক পুরুষ বলেনা।
কারণ আমি ঠোটের কোণায় সিগারেট রাখতে জানিনা,
খেলাধুলায় আকর্ষণ জাগেনা,
পুরুষের মত নাকী কথা বলতে জানিনা,
পুরুষদের মত হাটতে জানিনা,
মেয়ে পটিয়ে প্রেম করতে পারিনা,
তাই সমাজ আমাকে পুরুষ বলেনা।
ওরা বলে,
পুরুষ হলে পুরুষসুলভ কাজকর্ম করতে হয়।
এইভাবে রবীন্দ্রসংগীত শুনে সন্ধ্যে পার করলে পুরুষ হওয়া যাবেনা,
হাটাটাও বাদ দিতে হবে,
পাছা নাচিয়ে হাটে মেয়েরা,
তুই হাটিস কেন?
শিরদাঁড়া সোজা করে হাটবি।
আর এইসব মেয়েলিটাইপ কথা বাদ দিস,
ওইসব টেনেটেনে রিনরিনে গলায় কথা বলবিনা।
ওইসব ফেসবুকে কী এক দুলাইন লিখিস,
দুএকটা ছবিও আঁকিস,
ওইসবে পুরুষ হওয়া যায়না।
বুক টানটান করে সোজা হয়ে হাটবি,
মেয়েদের সাথে রঙ্গরসের চ্যাট করবি,
নাহলে মেয়ে পটবেনা,
নয়তো পুরুষ হতে পারবিনা।
চেষ্টা করি,
হাজার ঘন্টা ধরে।
নাহ; আমার দ্বারা পুরুষ হয়ে ওঠেনা।
তাই সমাজও আমায় ঠিক পুরুষ বলেনা।
সমাজ বলে,
আমি মেয়েলিপুরুষ।
সমাজ আমার শরীর খুঁজে,
নারীর শরীর নাকী পুরুষের শরীর আমার?
আমার পৌরুষত্ব খুঁজে হাটার ধরন দ্যাখে,
মেয়ে পটানোতে,
কথাবার্তার ধরন দেখে;
ওরা আমার মন; চিন্তাভাবনা; এইসব দেখেনা।
আমি তাই সমাজের শরীর বাদ দিয়েছি,
আমি আমার শরীর মন নিয়ে বেশ আছি।
তোমরা যারা আমায় বাঁকা চোখে দ্যাখো,
তারা আমাকে ত্যাগ করতে পারো,
আমার কোন সমস্যা নেই।
কারণ আমার পৌরুষত্ব নিয়ে আমি জ্ঞাত আছি।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.